Wednesday, October 28, 2015

Ibn Battuta at the Constantinople

 

 Ibn Battuta at the Constantinople

The Adventures of Ibn Battuta Historical thriller

Our company was started in the early hours of the day.
After a few days the caravan Princess Pilu.
Constantinople delivered into the outskirts.
Meanwhile, news of the emperor daughter had reached the capital.
Thousands of men, women and children, beautiful clothes, waiting to come out of the city to visit the caravan Sleeping Beauty Pilu. drums, flute and other instruments, the sound of applause came around.
Including an ornate royal army of the emperor and his queen (who Princess Pilu’s mother) to meet with his daughter came out of the city.
With him was also present in the high-class elites.
A beautiful umbrella over the head of the emperor as infantry and cavalry of the army brandished held. Long is a beautiful umbrella scheme looks more beautiful on the bars.
I Princess was the Caravan, but was moved to one side to avoid crowd.
I've heard from others Princess, the first fall down from the car, kissed the ground.
After her mother and father had the honor of kissing a horse on two legs.
Whatever after some time we entered Constantinople.
Strong words from the four-hour sound rang in the church.
With the sound of the church bell rang and put a lot of hours in a diversified harmony of creation.
Entry into the palace of the emperor armed horseman 'sarakalo sarakalo saying shouted ran up to us.
To the Romans' sarakalo means Muslim
 and I understand that we are seeing some companions skin clothing Muslim
horse team stopped us from entering the palace.
Princess, an employee told them that we are guests Princess.
But they refused to go.
He will take the royal permission.
We waited a few Muslims on one side necessarily.
Princess had already gone inside the palace with his president and mother.
Princess, one of the servant class and told us to go Princess of this suffering.
Princess urgently sent the emperor to permit access to.
Princess, a house near the palace of the emperor who has commanded us to negotiate the meals.
Not only that, he'd issued a decree that the Mandate, we will be able to travel to the royal guests and the city where Will and commanded the respect and provided with proper security.
Bangla

কনস্টান্টিনোপলে  ইবনে বতুতা

ইবনে বতুতার ঐতিহাসিক রোমাঞ্চকর অভিযান

দিনের প্রথম প্রহরে আমাদের কাফেলা যাত্রা শুরু করল।
কয়েকদিন চলার পর পিলুন খাতুনের কাফেলা।
কনস্টান্টিনোপলের উপকন্ঠে এসে পৌঁছুল।
ইতোমধ্যেই সম্রাট দুহিতা শুভাগমনের খবর রাজধানীতে পৌঁছে গিয়েছিল।
হাজার হাজার নর নারী ও শিশু সুন্দর সুন্দর জামা কাপড় পরে খাতুনের কাফেলা দেখার জন্য শহরের বাইরে এসে অপেক্ষা করছিল।ঢোল,বাঁশি ও অন্যান্য বাদ্য যন্ত্রের আওয়াজে চারিদিকে সরব হয়ে উঠল।
রাজকীয় একটি সুসজ্জিত সেনাদল সহ সম্রাট স্বয়ং তাঁর এক রাণীকে (যিনি পিলুন খাতুনের মা)সঙ্গে নিয়ে কন্যাকে অভ্যার্থনা জানাতে শহরের বইরে চলে এসেছেন।
তাঁর সঙ্গে রাজ্যের উঁচু শ্রেণীর গণ্যমান্যরাও উপস্তিত ছিলেন।
সম্রাটের মাথার উপর একটি সুন্দর চন্ত্রতপ উঁচিয়ে ধরেছিল পদাতিক এবং অশ্বারোহী কয়েকজন ছত্রী সেনা।
লম্বা একটি দন্ডের উপর বসালে চন্ত্রাতপটির মাঝ খানটা গম্ভুজাকৃতির দেখায়।
 আমি খাতুনের কাফেলায় ছিলাম,কিন্তু ভীর এড়াতে একপাশে সরে এসেছিলাম।
অন্যদের কাছে শুনেছি খাতুন গাড়ী থেকে নেমে প্রথমে আভূমি নত হয়ে মাটিতে চুমু খেলেন।তার পর মা ও বাবার অশ্ব দ্বয়ের পায়ে চুমু খেয়ে সম্মান জানালেন।
যাই হোক.কিছুক্ষণ পরেই আমরা কনস্টন্টিনোপলে প্রবেশ করলাম।
চারদিক থেকে প্রচন্ড শব্দে গির্জার ঘন্টা ধ্বনী বেজে উঠল।
অনেকগুলো গির্জার ঘন্টাধ্বনী এক সঙ্গে বেজে উঠায় এক বিচিত্র ঐকতানের সৃষ্টি হলো।
সম্রাটের প্রাসাদে প্রবেশের সময় সশস্ত্র অশ্বারোহী ‘সারাকলো সারাকলো’ বলে চেঁচিয়ে উঠে আমাদের দিকে তেড়ে এল।
রোমানদের কাছে ‘সারাকলো’ অর্থ মোসলমান।আমি ও আমার কয়েকজন সাথীর গায়ের পোশাক দেখে ওরা বুঝতে পারছিল আমরা মুসলমান।তাই অশ্বারোহী দলটি প্রাসাদে প্রবেশে আমাদের বাঁধা দিল।
খাতুনের একজন কর্মচারী তাদেরকে জানাল য়ে,আমরা খাতুনের মেহমান।
কিন্তু ওরা আমাদের যেতে দিতে রাজী হলো না।
বলল রাজকীয় অনুমতি লাগবে।
অগত্যা আমরা ক’জন মুসলমান একপাশে অপেক্ষা করতে লাগলাম।
ইতিমধ্যেই খাতুন তাঁর পিতা-মাতার সঙ্গে প্রাসাদের ভিতরে চলে গেছেন।
খাতুনের এক খাস খাদেম আমাদের এই দুরবস্থার কথা খাতুনকে গিয়ে জানাল।
খাতুন তারাতারি সম্রাটকে বলে আমাদের প্রবেশের অনুমতি পত্র পাঠিয়ে দিলেন।
খাতুন যে প্রাসাদে অবস্থান করছেন তার নিকটবর্তী একটি বাড়ীতে সম্রাট আমাদের থাকা খাওয়ার বন্দোবস্ত করার নির্দেশ দিলেন।
শুধু তাই নয়,তিনি ফরমানে এই হুকুমত জারি কররেন যে, আমরা রাজকীয় মেহমান এবং শহরের যেখানে খুশী যাতায়াত করতে পারব এবং এই ব্যাপারে আমাদেরকে যথাযথ নিরাপত্তা প্রদানেরও হুকুম দিলেন।

Wednesday, October 28, 2015

Ibn Battuta at the Constantinople

 

 Ibn Battuta at the Constantinople

The Adventures of Ibn Battuta Historical thriller

Our company was started in the early hours of the day.
After a few days the caravan Princess Pilu.
Constantinople delivered into the outskirts.
Meanwhile, news of the emperor daughter had reached the capital.
Thousands of men, women and children, beautiful clothes, waiting to come out of the city to visit the caravan Sleeping Beauty Pilu. drums, flute and other instruments, the sound of applause came around.
Including an ornate royal army of the emperor and his queen (who Princess Pilu’s mother) to meet with his daughter came out of the city.
With him was also present in the high-class elites.
A beautiful umbrella over the head of the emperor as infantry and cavalry of the army brandished held. Long is a beautiful umbrella scheme looks more beautiful on the bars.
I Princess was the Caravan, but was moved to one side to avoid crowd.
I've heard from others Princess, the first fall down from the car, kissed the ground.
After her mother and father had the honor of kissing a horse on two legs.
Whatever after some time we entered Constantinople.
Strong words from the four-hour sound rang in the church.
With the sound of the church bell rang and put a lot of hours in a diversified harmony of creation.
Entry into the palace of the emperor armed horseman 'sarakalo sarakalo saying shouted ran up to us.
To the Romans' sarakalo means Muslim
 and I understand that we are seeing some companions skin clothing Muslim
horse team stopped us from entering the palace.
Princess, an employee told them that we are guests Princess.
But they refused to go.
He will take the royal permission.
We waited a few Muslims on one side necessarily.
Princess had already gone inside the palace with his president and mother.
Princess, one of the servant class and told us to go Princess of this suffering.
Princess urgently sent the emperor to permit access to.
Princess, a house near the palace of the emperor who has commanded us to negotiate the meals.
Not only that, he'd issued a decree that the Mandate, we will be able to travel to the royal guests and the city where Will and commanded the respect and provided with proper security.
Bangla

কনস্টান্টিনোপলে  ইবনে বতুতা

ইবনে বতুতার ঐতিহাসিক রোমাঞ্চকর অভিযান

দিনের প্রথম প্রহরে আমাদের কাফেলা যাত্রা শুরু করল।
কয়েকদিন চলার পর পিলুন খাতুনের কাফেলা।
কনস্টান্টিনোপলের উপকন্ঠে এসে পৌঁছুল।
ইতোমধ্যেই সম্রাট দুহিতা শুভাগমনের খবর রাজধানীতে পৌঁছে গিয়েছিল।
হাজার হাজার নর নারী ও শিশু সুন্দর সুন্দর জামা কাপড় পরে খাতুনের কাফেলা দেখার জন্য শহরের বাইরে এসে অপেক্ষা করছিল।ঢোল,বাঁশি ও অন্যান্য বাদ্য যন্ত্রের আওয়াজে চারিদিকে সরব হয়ে উঠল।
রাজকীয় একটি সুসজ্জিত সেনাদল সহ সম্রাট স্বয়ং তাঁর এক রাণীকে (যিনি পিলুন খাতুনের মা)সঙ্গে নিয়ে কন্যাকে অভ্যার্থনা জানাতে শহরের বইরে চলে এসেছেন।
তাঁর সঙ্গে রাজ্যের উঁচু শ্রেণীর গণ্যমান্যরাও উপস্তিত ছিলেন।
সম্রাটের মাথার উপর একটি সুন্দর চন্ত্রতপ উঁচিয়ে ধরেছিল পদাতিক এবং অশ্বারোহী কয়েকজন ছত্রী সেনা।
লম্বা একটি দন্ডের উপর বসালে চন্ত্রাতপটির মাঝ খানটা গম্ভুজাকৃতির দেখায়।
 আমি খাতুনের কাফেলায় ছিলাম,কিন্তু ভীর এড়াতে একপাশে সরে এসেছিলাম।
অন্যদের কাছে শুনেছি খাতুন গাড়ী থেকে নেমে প্রথমে আভূমি নত হয়ে মাটিতে চুমু খেলেন।তার পর মা ও বাবার অশ্ব দ্বয়ের পায়ে চুমু খেয়ে সম্মান জানালেন।
যাই হোক.কিছুক্ষণ পরেই আমরা কনস্টন্টিনোপলে প্রবেশ করলাম।
চারদিক থেকে প্রচন্ড শব্দে গির্জার ঘন্টা ধ্বনী বেজে উঠল।
অনেকগুলো গির্জার ঘন্টাধ্বনী এক সঙ্গে বেজে উঠায় এক বিচিত্র ঐকতানের সৃষ্টি হলো।
সম্রাটের প্রাসাদে প্রবেশের সময় সশস্ত্র অশ্বারোহী ‘সারাকলো সারাকলো’ বলে চেঁচিয়ে উঠে আমাদের দিকে তেড়ে এল।
রোমানদের কাছে ‘সারাকলো’ অর্থ মোসলমান।আমি ও আমার কয়েকজন সাথীর গায়ের পোশাক দেখে ওরা বুঝতে পারছিল আমরা মুসলমান।তাই অশ্বারোহী দলটি প্রাসাদে প্রবেশে আমাদের বাঁধা দিল।
খাতুনের একজন কর্মচারী তাদেরকে জানাল য়ে,আমরা খাতুনের মেহমান।
কিন্তু ওরা আমাদের যেতে দিতে রাজী হলো না।
বলল রাজকীয় অনুমতি লাগবে।
অগত্যা আমরা ক’জন মুসলমান একপাশে অপেক্ষা করতে লাগলাম।
ইতিমধ্যেই খাতুন তাঁর পিতা-মাতার সঙ্গে প্রাসাদের ভিতরে চলে গেছেন।
খাতুনের এক খাস খাদেম আমাদের এই দুরবস্থার কথা খাতুনকে গিয়ে জানাল।
খাতুন তারাতারি সম্রাটকে বলে আমাদের প্রবেশের অনুমতি পত্র পাঠিয়ে দিলেন।
খাতুন যে প্রাসাদে অবস্থান করছেন তার নিকটবর্তী একটি বাড়ীতে সম্রাট আমাদের থাকা খাওয়ার বন্দোবস্ত করার নির্দেশ দিলেন।
শুধু তাই নয়,তিনি ফরমানে এই হুকুমত জারি কররেন যে, আমরা রাজকীয় মেহমান এবং শহরের যেখানে খুশী যাতায়াত করতে পারব এবং এই ব্যাপারে আমাদেরকে যথাযথ নিরাপত্তা প্রদানেরও হুকুম দিলেন।