Saturday, March 26, 2016

হে মহান স্বাধীনতা আপনি কি শুধু সুবিধা লাভকারীর সুন্দর স্লোগান

দিরাই বি এ ডি সি মাঠের স্বাধীনতা দিবস ২০১৬ এর প্যান্ডেল
অনেক জ্ঞানী গুণী ছোট বড় পদধারীদের মুখে স্বাধীনতার মহান বানী শুনা যায় ।
অপরদিকে দেশের গরীব মানুষ জানেন না স্বাধীনতার মানে ।
কারণ তাদের কাছে জীবন মানেই আক্ষেপের।
এ বিষয়ে কোন সন্দেহের অবকাশ নেই যে,
১৯৭১ সালে জনগণের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণে অনেক ত্যাগের বিনিময়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জিত হয়েছে ।
কিন্তু দেশের রাজনীতি সব সময় সুবিধাভোগী দলীয় গন্ডিতে বন্ধী হয়ে রয়েছে।
দেশ শাসনে জনগণের কথা বলা হলেও কখনো জনগণের পক্ষের রাজনীতি করা হয় নি।
তাই জনগণ গনতন্ত্রের অর্থ কি তা আজো উপলাদ্ধ করতে পারেননি ,বুঝতে পারেননি।
যদিও গণতন্ত্রের কথা রাষ্ট্র ক্ষমতায় চর্চা করা হয়,প্রচার করা হয় ,কিন্তু বাস্তবায়ন হয় না,এখনো পর্যন্ত জনগণ গনতন্ত্রের সুফল হতে বঞ্চিত রয়েছেন।গণতন্ত্র এমন একটি বিষয় যেখানে সকল মানুষের অধিকার নিশ্চিত করা হয়।এটা শুধু ভোট দিয়ে একজন জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করার মধ্যে সীমাবন্ধ নয়।তবে জনগণের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণে ভোট প্রদানে জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করা গণতন্ত্রের একটি প্রধাণ শর্ত।বর্তমানের বাংরাদেশে এই শর্তটিও পালন করা হয় না।
আপাত দৃষ্টিতে দেখলে মনে হয় বর্তমানে দেশে দুই ধরণের রাজনীতি চালু আছে ।
একদল ক্ষমতাবান ও সুবিধা প্রাপ্ত !
অপর দল ক্ষমতার বাহিরে সুবিধা বঞ্চিত।
স্বভাবতই এই দুই ধরণের রাজনীতিতে জনগণের অংশগ্রহণ সীমিত।
যদিও মুক্তিযুদ্ধে দেশের প্রায় সকল জনগণ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে অংশ গ্রহণ করেছিলেন।

এই দুই ধরনের রাজনীতিতে সহজাত ভাবে নিরুপায় সাধারণ মানুষ বাঁচার তাগিদে সুবিধা অর্জনের পক্ষে আকৃষ্ট হচ্ছেন।কারণ দুই পক্ষের মধ্যে জনগনের জন্য রাজনৈতিক চর্চার অভাব থাকায় শুধু ক্ষমতা কেন্ত্রীক বিরোধিতা বজায় রাখা হচ্ছে, অপর পক্ষ রাজনৈতিক সুবিধা অর্জন করতে পারছেন না।অর্থাৎ সামগ্রিক বিষয়টি দুই পক্ষের ক্ষমতা কেন্ত্রিক হওয়ায় জনগণের কোন উপকারে লাগছে না।
এ কারণে দিন দিন বাংলাদেশে সুবিধাবাদী রাজনীতির পাল্লা ভারী হচ্ছে।
এই সুবিধাবাদী রাজনীতি শুধু আদালতকে স্পর্শ করতে না পারলেও দেশের সকল প্রতিষ্ঠানে ক্রমশ প্রভাব বিস্তার করছে ।
এই কারনে সাধারণ জনগণের অধিকার ক্রমশ: সংকোচিত হয়ে যাচ্ছে ।
পাশাপাশি নেতাদের দেশ ও জনগণের জন্য নীতি ও ত্যাগের রাজনীতি বিলুপ্ত হচ্ছে।
মহান জনদরদী নেতা হওয়ার পরিবেশ বিনষ্ট হয়ে যাচ্ছে।
এরূপ ধারাবাহিকতায় বর্তমানের রাজনীতির যে সকল আদর্শবাদী কথা বলা হয় তা জনগণের কোন উপকারে আসছে না।
এ্ই কারণে জনগণের মনে এই ধারণা জন্ম নিতে পারে যে, সে অতীত ইতিহাস শুধু প্রচারণায়,যা তাদের কোন উপকারে লাগে না আর এই সুবিধাবাদী রাজনীতির কারণে অতীতে দেশের মহান নেতাদের হত্যা করা হয়েছে।আর বর্তমানে সেই রকম মহান নেতার প্রচন্ড অভাব রয়েছে এবং সেই মহান নেতাগুলো এতটাই মহান ও বড় ছিলেন যে,সে রকম নেতার আবির্ভাব বাংলাদেশে আর কখনো হবে না বা হতে পারে না।
জনগণের মনে এরকম ধারণার বিকাশ পরোক্ষভাবে সুবিধাবাদী রাজনীতিকেই উৎসাহিত করছে।
ফলে জনপ্রতিনিধিদের জনসেবার পরিবর্তে ক্ষমতা,টাকা অর্জন ও পেশী শক্তিই মুখ্য হয়ে উঠছে।
আর জনগণকে উদাহরণ সৃষ্টি করে বুঝানো হচ্ছে যে,টাকা,ক্ষমতা ও পেশী শক্তি ছাড়া নেতা হওয়া যায় না।
কিন্ত এই সমস্তের অনুশীলন জনগণকে হতাশ করছে এবং মেনে নেয়া ছাড়া আর কোন পথ খোলা থাকছে না।এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের জনগণের আত্ম সামাজিক উন্নয়নে বাস্তবিক অর্জনের পথে হতাশাজনক প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে।
যা একটি জাতি গঠনে প্রধান অন্তরায় হিসবে সমাজে প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে ।
তারই প্রমাণ করতেই যেনো ,জন প্রতিনিধি নির্বাচন কালে সংঘর্ষে মারা যাচ্ছে মানুষ আর এর অশুভ কবল খেকে নিজ দলের মানুষেরও জীবন হানি ঘটছে।
যা একটি দেশের জন্য সত্যি দুঃখ জনক।
তাই এই প্রেক্ষিতে বলা যায়,
হে মহান স্বাধীনতা আপনি কি শুধু সুবিধা লাভকারীর সুন্দর স্লোগান !

Saturday, March 26, 2016

হে মহান স্বাধীনতা আপনি কি শুধু সুবিধা লাভকারীর সুন্দর স্লোগান

দিরাই বি এ ডি সি মাঠের স্বাধীনতা দিবস ২০১৬ এর প্যান্ডেল
অনেক জ্ঞানী গুণী ছোট বড় পদধারীদের মুখে স্বাধীনতার মহান বানী শুনা যায় ।
অপরদিকে দেশের গরীব মানুষ জানেন না স্বাধীনতার মানে ।
কারণ তাদের কাছে জীবন মানেই আক্ষেপের।
এ বিষয়ে কোন সন্দেহের অবকাশ নেই যে,
১৯৭১ সালে জনগণের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণে অনেক ত্যাগের বিনিময়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জিত হয়েছে ।
কিন্তু দেশের রাজনীতি সব সময় সুবিধাভোগী দলীয় গন্ডিতে বন্ধী হয়ে রয়েছে।
দেশ শাসনে জনগণের কথা বলা হলেও কখনো জনগণের পক্ষের রাজনীতি করা হয় নি।
তাই জনগণ গনতন্ত্রের অর্থ কি তা আজো উপলাদ্ধ করতে পারেননি ,বুঝতে পারেননি।
যদিও গণতন্ত্রের কথা রাষ্ট্র ক্ষমতায় চর্চা করা হয়,প্রচার করা হয় ,কিন্তু বাস্তবায়ন হয় না,এখনো পর্যন্ত জনগণ গনতন্ত্রের সুফল হতে বঞ্চিত রয়েছেন।গণতন্ত্র এমন একটি বিষয় যেখানে সকল মানুষের অধিকার নিশ্চিত করা হয়।এটা শুধু ভোট দিয়ে একজন জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করার মধ্যে সীমাবন্ধ নয়।তবে জনগণের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণে ভোট প্রদানে জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করা গণতন্ত্রের একটি প্রধাণ শর্ত।বর্তমানের বাংরাদেশে এই শর্তটিও পালন করা হয় না।
আপাত দৃষ্টিতে দেখলে মনে হয় বর্তমানে দেশে দুই ধরণের রাজনীতি চালু আছে ।
একদল ক্ষমতাবান ও সুবিধা প্রাপ্ত !
অপর দল ক্ষমতার বাহিরে সুবিধা বঞ্চিত।
স্বভাবতই এই দুই ধরণের রাজনীতিতে জনগণের অংশগ্রহণ সীমিত।
যদিও মুক্তিযুদ্ধে দেশের প্রায় সকল জনগণ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে অংশ গ্রহণ করেছিলেন।

এই দুই ধরনের রাজনীতিতে সহজাত ভাবে নিরুপায় সাধারণ মানুষ বাঁচার তাগিদে সুবিধা অর্জনের পক্ষে আকৃষ্ট হচ্ছেন।কারণ দুই পক্ষের মধ্যে জনগনের জন্য রাজনৈতিক চর্চার অভাব থাকায় শুধু ক্ষমতা কেন্ত্রীক বিরোধিতা বজায় রাখা হচ্ছে, অপর পক্ষ রাজনৈতিক সুবিধা অর্জন করতে পারছেন না।অর্থাৎ সামগ্রিক বিষয়টি দুই পক্ষের ক্ষমতা কেন্ত্রিক হওয়ায় জনগণের কোন উপকারে লাগছে না।
এ কারণে দিন দিন বাংলাদেশে সুবিধাবাদী রাজনীতির পাল্লা ভারী হচ্ছে।
এই সুবিধাবাদী রাজনীতি শুধু আদালতকে স্পর্শ করতে না পারলেও দেশের সকল প্রতিষ্ঠানে ক্রমশ প্রভাব বিস্তার করছে ।
এই কারনে সাধারণ জনগণের অধিকার ক্রমশ: সংকোচিত হয়ে যাচ্ছে ।
পাশাপাশি নেতাদের দেশ ও জনগণের জন্য নীতি ও ত্যাগের রাজনীতি বিলুপ্ত হচ্ছে।
মহান জনদরদী নেতা হওয়ার পরিবেশ বিনষ্ট হয়ে যাচ্ছে।
এরূপ ধারাবাহিকতায় বর্তমানের রাজনীতির যে সকল আদর্শবাদী কথা বলা হয় তা জনগণের কোন উপকারে আসছে না।
এ্ই কারণে জনগণের মনে এই ধারণা জন্ম নিতে পারে যে, সে অতীত ইতিহাস শুধু প্রচারণায়,যা তাদের কোন উপকারে লাগে না আর এই সুবিধাবাদী রাজনীতির কারণে অতীতে দেশের মহান নেতাদের হত্যা করা হয়েছে।আর বর্তমানে সেই রকম মহান নেতার প্রচন্ড অভাব রয়েছে এবং সেই মহান নেতাগুলো এতটাই মহান ও বড় ছিলেন যে,সে রকম নেতার আবির্ভাব বাংলাদেশে আর কখনো হবে না বা হতে পারে না।
জনগণের মনে এরকম ধারণার বিকাশ পরোক্ষভাবে সুবিধাবাদী রাজনীতিকেই উৎসাহিত করছে।
ফলে জনপ্রতিনিধিদের জনসেবার পরিবর্তে ক্ষমতা,টাকা অর্জন ও পেশী শক্তিই মুখ্য হয়ে উঠছে।
আর জনগণকে উদাহরণ সৃষ্টি করে বুঝানো হচ্ছে যে,টাকা,ক্ষমতা ও পেশী শক্তি ছাড়া নেতা হওয়া যায় না।
কিন্ত এই সমস্তের অনুশীলন জনগণকে হতাশ করছে এবং মেনে নেয়া ছাড়া আর কোন পথ খোলা থাকছে না।এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের জনগণের আত্ম সামাজিক উন্নয়নে বাস্তবিক অর্জনের পথে হতাশাজনক প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে।
যা একটি জাতি গঠনে প্রধান অন্তরায় হিসবে সমাজে প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে ।
তারই প্রমাণ করতেই যেনো ,জন প্রতিনিধি নির্বাচন কালে সংঘর্ষে মারা যাচ্ছে মানুষ আর এর অশুভ কবল খেকে নিজ দলের মানুষেরও জীবন হানি ঘটছে।
যা একটি দেশের জন্য সত্যি দুঃখ জনক।
তাই এই প্রেক্ষিতে বলা যায়,
হে মহান স্বাধীনতা আপনি কি শুধু সুবিধা লাভকারীর সুন্দর স্লোগান !