Thursday, April 7, 2016

পৌরসভার স্বাস্থ্য সচেতনতা এবং জনগণের সুস্বাস্থ্য!?

পৌরবাসীর স্বাস্থ্য সুরক্ষা পৌরসভার সেবার অন্তভূক্ত।
এক্ষেত্রে পৌরসভার স্বাস্থ্য বিভাগের অধীনে পরিচ্ছন্ন শাখার একটি কাজ হলো-
ড্রেন নিয়মিত পরিস্কার করা ।
যাতে ড্রেনের ময়লাগুলো উপচে রাস্তায় চলে না আসে।
 ড্রেন পরিষ্কার করার সময় রাত ১০.০০ টা থেকে  ভোর ৫.০০ টা  পর্যন্ত হওয়া উচিৎ এবং
ড্রেনের ময়লা গুলো উক্ত সময়ের মধ্যে অপসারন করা জরুরী ।
যাতে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের সৃষ্টি না হয়, জনগণের কোনরূপ অসুবিধা না হয় বা জনস্বাস্থের জন্য হুমকি না হয়।
কিন্তু জনগণের এসকল জনস্বাস্থ্য সম্পর্কীত নিয়মগুলি কি পৌরসভা খেয়াল করেন ? পালন করেন ?
যেমন সুনাম গঞ্জের দিরাই পৌরসভার ড্রেনের ময়লা গুলো তুলা হচ্ছে দিনের বেলা জনগণের চলাচলের মধ্যে এবং
 ড্রেনের ময়লা গুলো রাস্তার পাশে স্তুপিকৃত করে রাখা হচ্ছে,সংগে সংগে অপাসারণ করা হচ্ছে না।
যে ময়লাগুলোতে সবচেয়ে বেশী রোগ জীবনু বাস করে।
কিন্তু রাস্তার পাশে ড্রেনের ময়লা রাথার কারণে দূগন্ধে ভরে যাচ্ছে পরিবেশ ।
অস্বাস্থ্যকর পৌরবাসির চলাচলে অসুবিধা হচ্ছে ।
বৃষ্টি হচ্ছে,বৃষ্টির পানি ড্রেনের ময়লা রোগজীবানু ছড়িয়ে যাচ্ছে আশে পাশে ।
উম্মুক্ত ভাবে ফেলে রাখা ময়লা গুলো দিনের পর দিন
ড্রেনের ময়লাতে মাছি বসছে ।
সে মাছি উড়ে গিয়ে বসবে সংলগ্ন হোটেলের কোন মানুষের খাবারের প্লেটে।
সে খাবার খেয়ে মানুষ সহজেই রোগে আক্রান্ত হতে পারেন।
উ্ন্নয়নের জন্য ড্রেন দেয়া হয় যাতে মল, ময়লা মাটির তল দিয়ে অপসারিত হয়ে যায়।
সে ময়লা যদি জনগণের চলাচলের রাস্তার পাশে ফেলে রাখা হয় ,
তবে কি বলা যায় না এরুপ উন্নয়নের অব্যবস্থাপনা বুমেরাং হয়ে দূর্ভোগ বাড়াচ্ছে জনগণের ?
সরকার বাহাদুর কর্তৃক জনগণকে স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য বিপুল পরিমান টাকা ব্যয় করেন ।
জনগণের স্বাস্থ্য সচেতন হওয়ার জন্য বহুল প্রচারণা চালান।

কিন্তু জনগণের স্থানীয় সরকারের প্রতিষ্ঠান গুলো কি এ ব্যাপারে সচেতনতার পরিচয় দিতে পারছেন ?
যদি একটি গুরুত্বপূর্ন স্থানীয় সরকার এর প্রতিষ্ঠান জনগণের স্বাস্থ্য সচেতনতার বিষয়ে ব্যর্থতার পরিচয় দেন।
তবে জনগণ কিভাবে স্বাস্থ্য সচেতন হতে পারেন ?

Thursday, April 7, 2016

পৌরসভার স্বাস্থ্য সচেতনতা এবং জনগণের সুস্বাস্থ্য!?

পৌরবাসীর স্বাস্থ্য সুরক্ষা পৌরসভার সেবার অন্তভূক্ত।
এক্ষেত্রে পৌরসভার স্বাস্থ্য বিভাগের অধীনে পরিচ্ছন্ন শাখার একটি কাজ হলো-
ড্রেন নিয়মিত পরিস্কার করা ।
যাতে ড্রেনের ময়লাগুলো উপচে রাস্তায় চলে না আসে।
 ড্রেন পরিষ্কার করার সময় রাত ১০.০০ টা থেকে  ভোর ৫.০০ টা  পর্যন্ত হওয়া উচিৎ এবং
ড্রেনের ময়লা গুলো উক্ত সময়ের মধ্যে অপসারন করা জরুরী ।
যাতে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের সৃষ্টি না হয়, জনগণের কোনরূপ অসুবিধা না হয় বা জনস্বাস্থের জন্য হুমকি না হয়।
কিন্তু জনগণের এসকল জনস্বাস্থ্য সম্পর্কীত নিয়মগুলি কি পৌরসভা খেয়াল করেন ? পালন করেন ?
যেমন সুনাম গঞ্জের দিরাই পৌরসভার ড্রেনের ময়লা গুলো তুলা হচ্ছে দিনের বেলা জনগণের চলাচলের মধ্যে এবং
 ড্রেনের ময়লা গুলো রাস্তার পাশে স্তুপিকৃত করে রাখা হচ্ছে,সংগে সংগে অপাসারণ করা হচ্ছে না।
যে ময়লাগুলোতে সবচেয়ে বেশী রোগ জীবনু বাস করে।
কিন্তু রাস্তার পাশে ড্রেনের ময়লা রাথার কারণে দূগন্ধে ভরে যাচ্ছে পরিবেশ ।
অস্বাস্থ্যকর পৌরবাসির চলাচলে অসুবিধা হচ্ছে ।
বৃষ্টি হচ্ছে,বৃষ্টির পানি ড্রেনের ময়লা রোগজীবানু ছড়িয়ে যাচ্ছে আশে পাশে ।
উম্মুক্ত ভাবে ফেলে রাখা ময়লা গুলো দিনের পর দিন
ড্রেনের ময়লাতে মাছি বসছে ।
সে মাছি উড়ে গিয়ে বসবে সংলগ্ন হোটেলের কোন মানুষের খাবারের প্লেটে।
সে খাবার খেয়ে মানুষ সহজেই রোগে আক্রান্ত হতে পারেন।
উ্ন্নয়নের জন্য ড্রেন দেয়া হয় যাতে মল, ময়লা মাটির তল দিয়ে অপসারিত হয়ে যায়।
সে ময়লা যদি জনগণের চলাচলের রাস্তার পাশে ফেলে রাখা হয় ,
তবে কি বলা যায় না এরুপ উন্নয়নের অব্যবস্থাপনা বুমেরাং হয়ে দূর্ভোগ বাড়াচ্ছে জনগণের ?
সরকার বাহাদুর কর্তৃক জনগণকে স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য বিপুল পরিমান টাকা ব্যয় করেন ।
জনগণের স্বাস্থ্য সচেতন হওয়ার জন্য বহুল প্রচারণা চালান।

কিন্তু জনগণের স্থানীয় সরকারের প্রতিষ্ঠান গুলো কি এ ব্যাপারে সচেতনতার পরিচয় দিতে পারছেন ?
যদি একটি গুরুত্বপূর্ন স্থানীয় সরকার এর প্রতিষ্ঠান জনগণের স্বাস্থ্য সচেতনতার বিষয়ে ব্যর্থতার পরিচয় দেন।
তবে জনগণ কিভাবে স্বাস্থ্য সচেতন হতে পারেন ?